Friday , 30 October 2020
" শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ , শেখ হাসিনার বাংলাদেশ "

বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়

Biral Adarsha High School

সংবাদ ----:
বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিসিয়াল ওয়েব সাইটের আপডেটের কাজ চলছে । বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিসিয়াল ওয়েব সাইটের আপডেটের কাজ চলছে । বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিসিয়াল ওয়েব সাইটের আপডেটের কাজ চলছে ।

বার্ষিক ম্যাগাজিন
বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়
উপদেষ্টা
:
সাধারণ সম্পাদক
:
আহ্বায়ক
:
সহ -সাধারণ সম্পাদক
:
:
:
প্রকাশনী সংস্থা
:
page no :1
শুভেচ্ছা বাণী
শিক্ষা মানুষকে আলোকিত করে সমাজে তাঁর পূর্ণতা বিকাশের জন্য। যে জাতি যত বেশি শিক্ষিত সে জাতি তত বেশি উন্নত। মানসম্পন্ন জনসমাজ তৈরীতে সুশিক্ষার বিকল্প নেই। আর এ লক্ষ্যকে সামনে রেখেই ১৯৮৮ সালে বিরল ডিগ্রী কলেজে এই বিদ্যালয়টির জন্ম। জন্মলগ্ন থেকে নানা প্রতিকুলতার মাঝেও ধীরে ধীরে সুশিক্ষার দিকে এগিয়ে চলেছে। যার প্রতিফলন বিরলের জনসমাজ উপভোগ করছে। তথ্য ও প্রযুক্তির মাধ্যমে শিক্ষাদান, মান সম্পন্ন জনসমাজ গড়ার ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে সকলের দৃষ্টি কামনা করছি।

মোঃ মহি উদ্দীন
প্রধান শিক্ষক বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়।
page no :2
শুভেচ্ছা বাণী
নির্মল আকাশে পাখির বিচরণকে যেমন সীমায়িত করা সম্ভব নয়, যেমন সম্ভব নয় ফুলের সুভাসকে নির্দিষ্ট সীমানায় আবদ্ধ করা, ঠিক তেমনি সম্ভব নয় শিক্ষার সার্বজনীনতাকে একটি নির্দিষ্ট সীমানায় সীমায়িত করা। শিক্ষার দুর্লভ নির্যাসে প্রতিনিয়ত পবিত্র হচ্ছে ধরা। আগামীতে পরিপূর্ণ হবে ধারিত্রী শিক্ষার অমিয় আলোয়। আমি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি তাঁদের, যাঁরা এই বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, প্রস্ফুটন ও ফুলেল বিকাশে প্রতিনিয়ত অক্লান্ত পরিশ্রম করে গেছেন এবং যাচ্ছেন।শিক্ষার প্রচার ও প্রসারে বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সার্বিক সাফল্যে আমি সত্যিই অভিভূত। আমি অভিভূত এই ভেবে যে, সীমান্তঘেষা অসীম বিরল যেন শিক্ষা ক্ষেত্রে আজ শুধু স্থানীয়ভাবে নয় জাতীয়ভাবেও সবার নজর কাড়তে সক্ষম হয়েছে। অত্র প্রতিষ্ঠানের মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীরা আজ দেশের শিক্ষা, সাহিত্য,সংস্কৃতি ও রাজনীতির ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা রাখছে। আমি আরও আনন্দিত এ কারণে যে, ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে অত্র এলাকার একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিজেকে স্থান করে নিতে পেরেছে এবং ক্রমেই এর ভীত আরও শক্তিশালী হচ্ছে।

একটি জাতির গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে তার মানবসম্পদ। আর এই মানবসম্পদের সৃষ্টিশীল বিকাশে বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় অতীতে যেরকম ভূমিকা রেখেছে, আমি আশা করব আগামীতেও সেরকম ভূমিকার কোন ব্যত্যয় ঘটবে না। তাহলেই কেবল সম্ভব হবে আমরা যে স্বপ্ন দেখছি তার বাস্তবায়ন।পরিশেষে বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের আরও উত্তরোত্তর সাফল্য ও কল্যাণ কামনা করছি।
জনাব খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি
মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়।
page no :3
শুভেচ্ছা বাণী
এমন একটা সময় ছিল যখন নকল নামক ভাইরাস এ আক্রান্ত দেশের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক ও সমাজ। আর তখনই তকালীন উপজেলা চেয়ারম্যান মরহুম মহসীন আলী ও অধ্যক্ষ খলিলুর রহমান এর উদ্যোগে বিরল ডিগ্রী কলেজে ১৯৮৮ সালে যাত্রা শুরু হয় “আদর্শ শিশু বিদ্যালয় ” নামে। পরবর্তীতে অনেক সীমাবদ্ধতা পেরিয়ে বিরলবাসীর উদ্যোগে ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠানটির নামকরণ হয় “বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়”। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বাবু সতীশ চন্দ্র রায় ও ৯ নং ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জনাব কছিম উদ্দীন আহম্মেদ(শুকু) এদের বলিষ্ঠ ভূমিকায় ১৯৯৮সালে বিদ্যালয়টি মাধ্যমিক পর্যন্ত এম পি ও ভূক্ত হয়। ২০০৮ সালে পুনরায় আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর পরই মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এম পি এর জোরালো সুপারিশের মাধ্যমে ২০০৯ সালে তিনতলা একাডেমিক ভবন পাওয়ায় নিচতলার ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন এবং আমাদের প্রাণ প্রিয় জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা বজায় রেখে বিরল এলাকার উন্নয়নের কান্ডারী জননেতা জনাব খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর উদ্যোগে ২০১৯ সালে তিনতলার একাডেমিক ভবনের কাজ শুরু হয়ে চলমান অবস্থায়। সুনিপুন কর্মকুশলী শিক্ষকদের তত্তাবধানে এবং দক্ষ ব্যবস্থাপনায় হাজারো শিক্ষার্থী শুধু লেখা-পড়াতেই নয় শিক্ষার পাশা-পাশি বিভিন্ন সহশিক্ষা কার্যক্রম যেমন-জাতীয় দিবস, সাংস্কৃতিক, জাতীয় সংগীত, বিজ্ঞান কুইজ, বিজ্ঞান স্টোল, জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ,স্কাউটস কার্যক্রম, গণিত অলিম্পিয়াড ইত্যাদি প্রতিযোগিতায় সুনামের সাথে অংশ গ্রহণে সফলতা অর্জন করে চলছে ক্রমাগত। এ প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা বিদ্যালয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের পর বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠগুলোতে যোগ্যতার সাথে লেখা-পড়া করছে এবং প্রয়োজনের তাগিদে নিজেদেরেকে দেশের গুরুত্বপূর্ণ উচ্চ পদস্থ কর্মজীবনে প্রবেশের ফলে বিরলের সুনাম বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রতিনিয়ত। তারই ধারাবহিকতা বজায় রাখার জন্য হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নকে বাস্তবায়নের জন্য তাঁরই সুযোগ্য কণ্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের প্রাণ প্রিয় জননেতা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী জনাব খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর পরামর্শ ক্রমে বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়টি একটি ব্যতিক্রম ও অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে এ কামনাই করি।

আলহাজ্ব সবুজার সিদ্দিক সাগর(মেয়র)
সভাপতি , বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, বিরল উপজেলা শাখা।
page no :4
শুভেচ্ছা বাণী
বিরল আমার উপজেলা, আমার জন্মস্থান। বিরলের ভাল ঘটনাগুলো আমাকে নাড়া দেয়, আনন্দ দেয়। বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রশংসনীয় শিক্ষা কার্যক্রমে আমি মুগ্ধ। প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে নানা প্রতিকুলতার মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি অব্যাহত ভাবে এগিয়ে চলছে। প্রতিষ্ঠানটির চরম শ্রেণীকক্ষের সমস্যার কথা যখন আমি জানতে পারি তখন যতটুকু পেরেছি নতুন ভবন প্রতিষ্ঠার পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। নতুন ভবনে আমার বিরলের ছেলে মেয়েরা নির্বিঘ্নে পড়াশোনা করছে জেনে ভাল লেগেছে।

লেঃজেঃ(অবঃ) মাহবুবুর রহমান
সাবেক সেনা প্রধান ।
page no :5
শুভেচ্ছা বাণী
“বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়” বিরলে একটি ব্যতিক্রম ধর্মী প্রতিষ্ঠান হিসেবে ১৯৮৮ সালে যাত্রা শুরু করে। বিরলের সর্বস্তরের মানুুষ এগিয়ে আসে প্রতিষ্ঠানটির সহযোগিতায়। সীমিত জায়গায়, প্রয়োজনের একবারে অপ্রতুল শ্রেণী কক্ষ নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি ফলাফলের ক্ষেত্রে চমৎকার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে। শুধু পড়াশোনা নয়, শারীরিক শিক্ষা, সহশিক্ষা কার্যক্রম, বিতর্ক চর্চা সহ একটি সুশৃঙ্খল প্রতিষ্ঠান হিসেবে এটি আমার কাছে উপস্থাপিত হয়। প্রষ্ঠিানটির তখনো এম.পি.ও ভূক্ত হয় নাই। ১৯৯৮ সালে এতো ভাল একটি প্রতিষ্ঠানকে এমপিও ভুূক্ত করতে পেরে আমি আনন্দিত হয়েছিলাম।

আধুনিকতার এই যুগে আমরা যখন অনেক বেশি যান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছি, আমাদের বোধগুলো যেন ক্রমাগত ভোতা হয়ে যাচ্ছে। আগের মত ব্যঞ্জনাময় তীর হয়ে আর বিদ্ধ করে না। সেই সময়ে সকলকে একত্রিত করার, সকলকে স্মরণ করে কৃজ্ঞতার পাশে আবদ্ধ করার মোক্ষম এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে মূল্যবোধ গুলোকে শাণিত করার দূর্লভ সুযোগটিকে উৎসবে পরিণত করতে পেরেছে বলেই তো আদর্শ স্কুল আমাদের মফস্বল বিরলের পথিকৃৎ প্রতিষ্ঠান ।
বাবু শ্রী সতীশ চন্দ্র রায়
প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী
page no :6
শুভেচ্ছা বাণী
বিরলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা থাকালীন সময় বিদ্যালয়টি পরিদর্শণে যেয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের পড়ালেখায় ও শিক্ষক মন্ডলীর পাঠদানে আগ্রহ দেখে মুগ্ধ হই। এ সময় বিদ্যালয়টি নানা সমস্যায় জর্জরিত ছিল। বিশেষ করে ছাত্র-ছাত্রী বৃদ্ধি পাওয়ায় ক্লাস পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছিল না। এ কারনে ১৯৯৩ সালে বিদ্যালয়টি বিরল উপজেলা চত্তরে স্থান্তরিত করতে হয় এবং উপজেলার সমাজ সেবা দপ্তরের একটি টিনের ঘরে বিদ্যালয়ের অফিস স্থাপন করে আমগাছতলায় ক্লাস চলতে থাকে। এসময় বিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়। ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত বিদ্যালয়টির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন কালে নব প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়টিতে দৃঢ় ভিত্তির উপর দাড় করানোর বিভিন্ন প্রচেষ্টা গ্রহণ করি। আমার এই প্রচেষ্টায় বিরলের সুধীজন এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জনাব মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান স্বতস্ফুর্তভাবে এগিয়ে এসে এটিকে একটি আদর্শ বিদ্যালয় হিবেবে গড়ে তোলার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। স্থায়ী ভবন নির্মানের জন্য অনেকেই জমি দান করেন। অবশেষে ১৯৯৬ সালে বিদ্যালয়টি নিজস্ব ভবনে স্থানান্তরিত হয়। উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে একাডেমিক ভবন ও প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ করা হয়। পরবর্তীতে বিদ্যালয়ের অবকাঠামোর উন্নয়ন, বিদ্যালয়ের ফলাফল এবং সর্বপরি বিদ্যালয়টি উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্বীকৃতি পাওয়ায় আমি ভীষন আনন্দিত ও গর্বিত।

মোঃ আব্দুল মান্নান
সাবেক মহাপরিচালক (অতিরক্তি সচিব), ভূমি
page no :7
শুভেচ্ছা বাণী
মানব সম্পদ উন্নয়ন বলতে একটি জনগোষ্ঠির প্রতিভা, দক্ষতা ও সক্ষমতার বিকাশ ঘটানো বোঝায়। যা ঐ জনগোষ্ঠির শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চা ছাড়াও সৃজনশীলতার বিষয়গুলোর অনুশীলনের মাধ্যমে বিকশিত হয় । বিদ্যালয় হল সেই প্রতিষ্ঠান যেখানে এসব বিষয়ের বুনিয়াদি ভিত্তি গড়তে সাহায্য করে। বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় আমার প্রিয় বিরলের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের দক্ষ মানব সম্পদে পরিণত করার পবিত্র দায়িত্ব পালনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলছে।জীবনের সর্বক্ষেত্রে আমরা দেখি একাগ্রতা, নিষ্ঠা ও ক্লান্তিহীন অনুশীলনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হওয়া যায়। এটা যেমন ব্যক্তি তেমনি প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের একাগ্রতা ও নিষ্ঠা তাদেরকে করেছে অনন্য আর বিদ্যালয়টিকে করেছে মহিমাম্বিত।

মোঃ নুরুল ইসলাম
সচিব, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়
page no :8
শুভেচ্ছা বাণী
শিক্ষাই জ্ঞান, শিক্ষাই শক্তি, শিক্ষার মাঝেই আছে প্রগতি ও মুক্তি। মানবতা, শান্তি ও উন্নয়নে শিক্ষা অবিচ্ছেদ্য, আপোসহীন। সৎ ও চরিত্রবান মানুষ তৈরি করার জন্য সুশিক্ষার বিকল্প নেই। নানা প্রতিকূলতার মাঝেও বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় বিরল উপজেলাকে আলোকিত করার লক্ষ্যে নিরলস পরিশ্রম করে এগিয়ে চলেছে। বিদ্যালয়ের ফলাফল ইতোমধ্যে বিরল তথা দিনাজপুরবাসীকে আকৃষ্ট করেছে। পড়ালেকার পাশাপাশি খেলাধুলা, সহপাঠ্য কার্যক্রম উপজেলার সীমানা পেরিয়ে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছে।

মোঃ হামিদুল হক
সাবেক সভাপতি, বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়,বিরল ,দিনাজপুর।
page no :9
শুভেচ্ছা বাণী
বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় এ যাবৎ মানসম্মত শিক্ষা প্রদানে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছে। প্রতি বছর জে.এস.সি ও এস. এস. সি পরীক্ষার ফলাফলে অত্র বিদ্যালয়টি উপজেলার গন্ডি ছেড়ে জেলা পর্যায়ে অবস্থান করে নিচ্ছে। পাশাপাশি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডেও বিদ্যালয়টি নিয়মিত অংশ গ্রহণ করে থাকে। একই সাথে বিদ্যালয়টির ব্যবস্থাপনার সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বর্গ ও বিদ্যালয়ের শিক্ষা পরিবেশ সমুন্নত রাখতে অবদান রাখছেন। বিভিন্ন জাতীয় দিবস ও সরকারী অনুষ্ঠানে অত্র বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা স্বতষ্ফুতভাবে এবং বর্ণীল সাজে অংশগ্রহণ করে থাকে।সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় বিদ্যালয়টি তার সাফল্যের ধারাকে আরো বেগবান করবে বলে আমার বিশ্বাস। আমি বিদ্যালয়টির সাফল্য কামনা করছি।

আব্দুল্লাহ আল খায়রুম
সাবেক সভাপতি, বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়
page no :10
শুভেচ্ছা বাণী
মানব চেতনা বিকাশের মূল মন্ত্র হল শিক্ষা। আর শিক্ষা হচ্ছে একটি জাতির উন্নয়নের প্রথম সোপান এবং দীর্ঘস্থায়ী বিনিয়োগ। যে জাতি যত বেশি শিক্ষিত সে জাতি তত বেশি উন্নত। প্রতিযোগিতামূলক এই বিশ্বে টিকে থাকার জন্য শুধুমাত্র পুঁথিগত বিদ্যাই আজ যথেষ্ট নয়। এক্ষেত্রে চাই দক্ষ শিক্ষকসহ শিক্ষার আধুনিকতম কলাকৌশল, সুষ্ঠ পরিবেশ এবং বাস্তবায়নের উদ্যোগ। আর তাই যুগোপযোগী ও আধুনিক শিক্ষার প্রয়োজনে বিরলের সচেতন মহল,শিক্ষানুরাগী ব্যক্তি,অভিভাবক,সমাজসেবক, রাজনীতিবিদ, গুণীজন ও শুভাকাঙ্খী ব্যক্তিবর্গের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ১৯৮৮ খ্রি অত্র বিরল উপজেলার প্রাণকেন্দ্রে স্থাপিত হয় বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় নামে একটি আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বিদ্যালয়টি বিভিন্ন প্রতিকুলতার মধ্যেও কঠিন বাস্তবতার নিরিখে শিক্ষার্থী তথা নতুন প্রজন্মকে প্রযুক্তিগত ও আধুনিক সুশিক্ষায় গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকমন্ডলী তাঁদের সেবার ব্রত নিয়ে নিরলসভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। এরই মধ্যে বিদ্যালয়টি বিভিন্ন পরীক্ষার ফলাফল এবং পড়ালেখার পাশাপাশি শিক্ষার্থীর সৃজনশীল প্রতিভা বিকাশে সহপাঠ্যক্রমিক কার্যক্রমে সক্রিয় অংশগ্রহনসহ উপজেলাধীন প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিজেদের অগ্রণী ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছেন। উল্লেখ্য,এবারে কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস মহামারী এবং প্রতিকুল অবস্থার মধ্যেও বিদ্যালয়টি তাঁদের নিজস্ব ওয়েব সাইট পেইজে “বার্ষিক ম্যাগাজিন” প্রকাশের উদ্যোগ নেয়ায় আমি অত্যন্ত আনন্দিত।

আশা করছি,সকলের আন্তরিকপ্রচেষ্টায় বিদ্যালয়টি এবারের মত ভবিষ্যতেও সাফল্যেও এই ধারা বজায় রাখবে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। ওয়েব সাইটে এই “বার্ষিক ম্যাগাজিন” প্রকাশের কর্মযজ্ঞে যারা বিশেষ করে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সকল সদস্য,শিক্ষকমন্ডলী,অভিভাবকবৃন্দ,কর্মচারী ও শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে জানাই আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। পরিশেষে, আমি বিদ্যালয়টির উত্তোরত্তর সাফল্য ও উন্নতি কামনা করছি।
মোঃ তৈয়ব আলী
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, বিরল , দিনাজপুর।
page no :11
শুভেচ্ছা বাণী
জীবন মানে শুধু আরাম আয়েশে কাটানো নয়। জীবন মানে সুখের রাজ্যে ভেসে বেড়ানো নয়। জীবন মানেই হচ্ছে একজন মানুষ আরেকজন মানুষের সুখ দুঃখকে ভাগ করে নেয়া। জীবন মানে জ্ঞানের চর্চার মাধ্যমে কল্যাণের পথে এগিয়ে চলা। সবাই যখন এই নিয়মে এগিয়ে যাচ্ছিল, তখন বিরল উপজেলা যেন উল্টো পথে চলছিল। শিক্ষাক্ষেত্রে বিরল ছিল পিছিয়ে। আধুনিক, উন্নত যুগোপযোগী শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালনা করার লক্ষ্যেই প্রতিষ্ঠিত হয় বিরল কলেজিয়েট স্কুল। কলেজ থেকে স্থানান্তরের পর বেশ চড়াই উতরাই পেরিয়ে বর্তমান নিজস্ব জায়গায় প্রতিষ্ঠানটিকে প্রতিষ্ঠা করতে যারা এগিয়ে এসেছিলেন তাঁদের অনেকের মধ্যে তৎকালীন ইউ,এন,ও এম এ মান্নান, তৎকালীন সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিকুর রহমান আতিক, স্থানীয় মুরুব্বীদের মধ্যে অনেকেই সহযোগীতা করেছেন। দুটি নাম খুব স্মরণ পড়ছে মৃত মেহেদী-উল-ইসলাম যিনি “বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়” নামকরণ করেছিলেন। মৃত আব্দুল গফুর মিয়া সহ জমি দাতাদের মধ্যে জহুর মন্ডল, জয়নাল আবেদীন, জহুরুল ইসলাম অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন এ প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার জন্য।

প্রাথমিক ভাবে ছাত্র সংকট, অর্থ সংকট, শ্রেণী কক্ষের অভাব ছিল। ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠানটি সব বাধা বিঘ্ন অতিক্রম করতে সক্ষম হয়। বর্তমানে এটি বিরলের সকলের কাছে একটি আদর্শ প্রতিষ্ঠান হিসেবে সুপরিচিত। নকলের যুগে নকল মুক্ত একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায় বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়। পাশের হার, শিক্ষার মান ,শৃঙ্খলা, আদব-কায়দা, সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড, পিটি প্যারেড, খেলাধুলা সহ উন্নত চরিত্র গঠনে আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। বিরলের সর্ব স্তরের মানুষের সহযোগীতায় প্রতিষ্ঠানটি এগিয়ে যাক এই প্রত্যাশা করি। প্রতিষ্ঠানটিকে প্রতিষ্ঠা করতে বিরলের যে সকল গুনীজন, জমি দাতা, অভিভাবক মন্ডলী, শিক্ষক মন্ডলী, পরিচালনা পর্ষদ সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।
মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান (আক্কারুল)
সাবেক চেয়াসম্যান, ৫নং ইউ, পি,বিরল
page no :12
শুভেচ্ছা বাণী
জনসম্পদ তৈরীতে সুশিক্ষার কোন বিকল্প নেই। তাই জাতীয় উন্নয়নের পূর্বশর্ত হচ্ছে সুশিক্ষা। আমি বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির দায়িত্ব পেয়ে যা দেখেছি, প্রতিষ্ঠানের সম্মানিত শিক্ষকমন্ডলী বিরলের অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তুলনায় বেশি দক্ষ ও সুনিপুন কারিগর, যার প্রমান প্রত্যেক পরীক্ষায় কৃতিত্ব পূর্ণ ফলাফল। বিভিন্ন জাতীয় দিবসে অংশগ্রহণ করে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন, সরকারের যাবতীয় কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ। এছাড়াও স্থানীয় সামাজিক, সাংস্কৃতিক অঙ্গনে অংশগ্রহণ এক কথায় একজন শিক্ষার্থীর মেধা বিকাশে যা যা প্রয়োজন তার সবটুকুই দেয়ার প্রয়াশ আছে। অনেক সীমাবদ্ধতা ও প্রতিকূলতার মাঝেও আমি আশা রাখি আগামী দিনে বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষার গুণগতমান আরও সমৃদ্ধ হবে।

এ,কে,এম,মোস্তাফিজুর রহমান বাবু
চেয়ারম্যান উপজেলা পরিষদ বিরল ,দিনাজপুর।
page no :14
শুভেচ্ছা বাণী
নকলমুক্ত আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ার লক্ষ্যে বিরল উপজেলা প্রশাসন, বিরলের সুশীলসমাজ সর্বপরী সর্বোস্তরের বিরল উপজেলাবাসীর আন্তরিক প্রচেষ্ঠা এবং সহযোগীতায় ১৯৮৮ইং সালে বিরল ডিগ্রী কলেজে গড়ে উঠেছিল “আদর্শ শিশু বিদ্যালয়” নামে একটি যুগোপযোগী আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যা বিরল উপজেলায়, দিনাজপুর জেলায় শিক্ষাক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটাতে এবং বিরল উপজেলাকে এক ধাপ এগিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছে। সময়ের প্রয়োজনে পরবর্তীতে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নামকরণ করা হয় “বিরল কলেজিয়েট স্কুল” এবং পরে “বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়” ।

প্রতিষ্ঠানটির নিয়মিত শিক্ষা পদ্ধতি নিয়ম-শৃংখলা সুদক্ষ পরিচালনাপর্ষদ ও শিক্ষকদের আন্তরিক পাঠদান এবং অভিভাবকদের সার্বিক সহযোগিতায় এই বিদ্যালয়। যারা উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঈর্ষানিত ফলাফল করে দেশসেবায় তথা চাকুরী ক্ষেত্রে দেশের বিভিন্ন বিভাগে উচ্চ স্থান দখল করে নিয়ে বিরল উপজেলা বাসীর মুখ উজ্জল করেছে। এই প্রতিষ্ঠানটি গড়তে যাঁদের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং নিঃস্বার্থ প্রচেষ্টা তা যেন বিফলে না যায় সে দিকে লক্ষ্য রেখে পারস্পরিক হিংসা বিদ্বেষ ও দলাদলি ভূলে গিয়ে আরও সুনাম অর্জন করবে একামনাই করছি।
মোহাম্মদ শাহ্ জাহান মিঞা
সহকারী অধ্যাপক (অবঃ) বিরল ডিগ্রী কলেজ
page no :15
শুভেচ্ছা বাণী
পরীক্ষার কেন্দ্রে যখন চলছিল নকলের প্রতিযোগীতা, সেই সময়ে নকলকে না বলার প্রত্যয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়। বর্তমানে বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় বিরল উপজেলা তথা দিনাজপুর জেলার একটি সুনামধন্য বিদ্যালয় হিসেবে পরিচিত লাভ করেছে। তাই গৌরব উজ্জ্বল অত্র বিদ্যালয়ের সুযোগ্য শিক্ষকমন্ডলী, বর্তমান ও প্রতিষ্ঠাতা পরিচালনা পর্ষদকে জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। আগামীতে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে শিক্ষার মান উন্নয়নে বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে বলে আশা রাখি।

মোঃ রহমান আলী
বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাবেক সহ-সভাপতি, বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়।
page no :16
শুভেচ্ছা বাণী
বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়টি মানসম্মত পাঠদানের বিষয়ে অভিভাবকদের আগ্রহের স্থান দখল করে নিয়েছেন। বিভিন্ন পরীক্ষায় বিদ্যালয়টির ফলাফল উপজেলার যে কারও জন্য ঈর্ষনীয়। শুধু পড়ালেখা নয় তার সাথে সাংস্কৃতিক এবং মানসিক বিকাশ লাভের জন্যও প্রতিষ্ঠানটির আগ্রহ বিরলের সর্বমহলের আকর্ষন লাভে সক্ষম হয়েছে। বিভিন্ন সময় পরিদর্শণকালে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকবৃন্দের পাঠদানে আন্তরিকতা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষনে আগ্রহ আমাকে মুগ্ধ করেছে।

মোঃ গোলাম রাব্বী
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিরল,দিনাজপুর।
page no :17
শুভেচ্ছা বাণী
সময় চলে তার নিজ গতিতে। সময়ের তালে তালে বদলে যাচ্ছে পৃথিবীর দৃশ্যপট। তৈরি হচ্ছে আগামীর আলোকিত পথ। আমি বিশ্বাস করি ছাত্র-ছাত্রীরাই বর্তমান সময়ের শ্রেষ্ঠ সন্তান। কারণ, ছাত্র-ছাত্রীরাই তো আগামীর জন্য দেশের ভবিষ্যৎ। অর্জিত জ্ঞান ও সৎ গুণাবলিই ভবিষ্যতে নিজেকে আলোকিত করার প্রধান অবলম্বন। শিক্ষা মানুষকে শেখায় নিজকে ও দেশকে চিনতে। যে শিক্ষা মানুষকে শুধু বাঁচার পথ দেখায় তা প্রকৃত নয়। প্রকৃত শিক্ষা ছাত্র-ছাত্রীদেরকে যেমনি নিজেকে চিনতে শেখায়, তেমনি চিনতে শেখায় অপরকে। এভাবেই তাদের মধ্যে মনুষ্যত্বের বীজ উপ্ত হয়। বিরল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় সে কাজটিই করে যাচ্ছে। সে কারণে অত্র বিদ্যাপিঠে যারা অধ্যয়ন করছে তারা ভাগ্যবান বলে আমি মনে করি।

সফিকুল আজাদ মনি
সহঃ সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ বিরল, দিনাজপুর।



Contact us

Biral Adarsha High School
Biral , Dinajpur-5210
01714803764
sbahs120133@gmail.com

© Copy right : All right reserved

Powered by

ANCOVA

School-College Management Syatem
Website Development
Data analysis & Research Center.
Contact us:
01750360044
rayhanbabu458@gmail